আত্মরক্ষার জন্য ৯০০ ভোল্ট বিদ্যুৎ উৎপন্ন করে বৈদ্যুতিক শক দিতে পারে যে মাছ

প্রিও পাঠক বন্ধুরা আসসালামুআলাইকুম, কেমন আছেন সবাই ? আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছেন, আমিও আপনাদের দোয়াই আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। চলে এলাম নতুন কিছু নিয়ে। বন্ধুরা আজ  আমি আপনাদের সাথে একটু ভিন্ন কিছু আলোচনা করব যেটা  অনাকেই জানেন আবার অনেকেই জানেন না। সেই ধারাবাহিকতাই আজ চলে এলাম নতুন কিছু জানাতে। চলুন শুরু করা যাক।

আজ আপনাদের একটা মাছ সম্পর্কে বলব। এটা কেমন কথা টেকনোলজি এর ভেতর কেন মাছ আসল। চলুন বিস্তারিত ভাবে জানি। আজব শুনতে লাগলেও সত্য।

আপনরা অনেকেই মাছ ধরতে গিয়েছেন। হঠাৎ এক মাগুরজাতীয় মাছ হাতের নাগালে দেখেই ধরতে গেলেন আর তখুনি ৬০০ ভোল্টের এক সাংঘাতিক বৈদ্যুতিক শক খেলেন। কেমন লাগবে । অবাক তাই না। হাঁ মাছের মধ্য এমন মাছ আছে। এটা কোন আজগুবি গল্প বা সায়েন্স ফিকশন লিখছি না ৷

আমাজনের নদীতে রয়েছে এরকম সাংঘাতিক এক মাছ যারা আত্মরক্ষার্থে ৯০০ ভোল্ট পর্যন্ত বিদ্যুৎ উৎপন্ন করে শক দিতে পারে! আমাজনের স্বাদু পানিতে এদের অবাধ বিচরণ। তবে বেশির ভাগ সময় এরা জলাশয়ের কর্দমাক্ত তলদেশে বাস করে। যদিও পানির ওপরেও এদের দেখা যায়। ছোট প্রাণী শিকার করতে গিয়েও ইলেকট্রিক শক ব্যবহার করে থাকে বলে এদের অনেকেই ইলেকট্রিক ইল ডেকে থাকে। তবে কোনো কারণে যদি এই শক মানুষের গায়ে লাগে তবে সে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যাবে প্রায় সঙ্গে সঙ্গেই। ইলেকট্রিক ইলকে কাবু করতে তাদের সবটুকু ইলেকট্রিক শক বের করে দেওয়া ছাড়া গতি নেই।

 

Loading...
Scroll Up